শুরুর ঘটনা

কৃতজ্ঞতা

It isn’t what we say or think that defines us, but what we do.

― Jane Austen, Sense and Sensibility

আমি ছোটবেলা থেকেই অফিসিয়াল ডকুমেন্টেশনে বিশ্বাসী। যাকে আমরা বলি RTFM, 'রিড দ্যা ফাইন ম্যানুয়াল' - চলে আসছে সেই নিউজগ্রূপের যুগ থেকে। ছোট্টবেলায় কমোডোরের সাথে আসা সেই 'জি ডাব্লিউ বেসিক'এর সেই ম্যানুয়াল আমাকে দেখিয়েছিলো কিভাবে অফিসিয়াল ডকুমেন্টেশন অসাধারণ হয়। আচ্ছা, যিনি একটা প্রোডাক্ট বানিয়েছেন, তার তৈরি ম্যানুয়াল ভালো হবে না আর কারটা হবে?

১. সাইকিট-লার্ন ডকুমেন্টেশন সাইট

পাইথন দিয়ে মেশিন লার্নিং শিখতে গিয়ে সবচেয়ে বেশি সময় কাটিয়েছি সাইকিট-লার্ন এর ডকুমেন্টেশন পেজে। হেন্ জিনিস নেই তারা কাভার করেনি। সেদিক থেকে 'এন্ড টু এন্ড' ডিপ লার্নিং ফ্রেমওয়ার্ক টেন্সর-ফ্লো এর শুরুর দিকটা অতো সহজ ছিলো না ভালো ডকুমেন্টেশন এর অভাবে। তবে সেটার সমস্যা মিটেছে গত একবছরে। টেন্সর ২.০ এর রিলিজকে মাথায় রেখে হাজারো ডকুমেন্টেশন চলে এসেছে গুগল ব্যাকড টেন্সর-ফ্লো সাইটে। গুগল নিজে থেকে যুক্ত হয়েছে উডাসিটি, ডিপমাইন্ড এবং কোর্সেরার মতো অসাধারণ কিছু লার্নিং প্লাটফর্মে। মানুষকে শেখাতে। সহজে।

২. উডাসিটি, ডিপমাইন্ড এবং কোর্সেরা লার্নিং প্ল্যাটফর্ম

বইটা লিখতে নিজের প্রজ্ঞা থেকে বেশি প্রাধান্য দিয়েছি অনলাইন লার্নিং প্ল্যাটফর্মগুলোকে। এই লার্নিং প্ল্যাটফর্মগুলোকে লম্বা সময় ধরে দেখেছি খুব কাছে থেকে। একটা জিনিস উপলব্ধি করেছি, হাজারো মানুষদের শেখানোর জন্য প্রচুর রিসার্চ করছে ভেতরে ভেতরে। কিভাবে শেখানো যায় অল্প সময়ে। খান একাডেমি মডেল থেকে বেশ কয়েকধাপ সামনে এগিয়ে তারা। একেকটা লার্নিং ম্যাটেরিয়ালের পেছনে অনেক শ্রম দেয় তারা। প্রচুর সময় নিয়ে তাদেরকে দেখেছি কিভাবে তারা এই লার্নিংকে এতো ভালো লেভেলে নিয়ে গেছে। আর সেকারণে আমার বইয়ে সেই নামকরা প্ল্যাটফর্মগুলোর সরাসরি ইনফ্লুয়েন্স থাকবে। বিশেষ করে, গল্পে, নোটবুকে। তাদের কয়েক বছরের লার্নিং রিসার্চকে পরিচয় করে দেবো আপনাদের সাথে। বইয়ের পেছনে থাকবে তাদের লিংক।

৩. গুগল টেন্সর-ফ্লো গিটহাব ডকুমেন্টেশন টিম

গুগল তার নামকরা সব প্রোডাক্টে ব্যবহার করে টেন্সর-ফ্লো। আমি নিজেও কাজে টেন্সর-ফ্লো ব্যবহার করি বলে বুঝতে পারি এর কাজের ধারা। প্রচন্ড ক্ষমতাশালী টেন্সর-ফ্লো এর ব্যাকএন্ড চালাচ্ছে গুগল সার্চ, ইউটিউব, জিমেইল, গুগল ফটোজ, ট্রান্সলেট আরো অনেককিছুই। এই বই লিখতে 'টেক্সট টু স্পিচ' চালাতে গিয়ে আমি নিজেই দেখছি কিভাবে এর অ্যাক্যুরেসি বাড়ছে সময়ের সাথে। সেরকমভাবে বাংলা ভাষায় ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং, সেন্টিমেন্ট অ্যানালাইসিস, টেক্সট এমবেডিংএর গতি ছুটছে পাগলের মতো। সেই টিমের ডকুমেন্টেশন আমাকে টেনেছে বেশি। টেন্সর-ফ্লো'এর গিটহাবের এক্সাম্পল/ডকস জুপিটার নোটবুকগুলো থেকে সাহায্য নিয়েছি সরাসরি।

৪. টেন্সর-ফ্লো ইউটিউব চ্যানেল

মেশিন এবং ডিপ লার্নিং ভালো শেখা যায় ভিজ্যুয়ালি। পুরোটা ভিডিও ভিত্তিক না হলেও বেসিক আন্ডারস্ট্যান্ডিং এর জন্য টেন্সর-ফ্লো ইউটিউব টিম খেটেছে অনেক বেশি। টেন্সর-ফ্লো, গুগল ক্লাউড চ্যানেলের সব কটা ভিডিও কয়েকবার করে দেখা শেষ। প্রতিটা ভিডিওতে অনেক ইনসাইট এসেছে ইন্ডাস্ট্রির দিক থেকে।

উডাসিটি, কোর্সেরা এবং গুগল মিলে যেভাবে টেন্সর-ফ্লো শেখানোর জন্য প্রতি মাসে টেক্সট, ভিডিও কনটেন্ট বানাচ্ছে সেখানে মানুষজন না শিখে যাবে কোথায়? আমার কাজ হচ্ছে পৃথিবীর সেরা সেরা কনটেন্টগুলোকে দরকারি মডারেশনে বাংলায় নিয়ে আসা। সেখানে যে 'আন্ডারস্ট্যান্ডিং গ্যাপ' থাকবে সেখানেই আমার কাজ। আপনাদের সাহায্য চাই বাংলাকে প্রযুক্তি শেখার ভাষায় পাল্টে দিতে। আমাদের প্রচুর কাজ বাকি আছে সামনে। শুরু করি আমাদের ভাষা নিয়ে।

৫. মার্কিন যুক্তরাষ্টে কয়েকটা বুটক্যাম্পের মেন্টর এবং বন্ধুরা

সান ফ্রান্সিস্কোতে ইদানিং কালে একটা বুটক্যাম্পে কাজ করতে গিয়ে আমার 'পেট' প্রজেক্ট নিয়ে প্রেজেনটেশন দিতে বলা হলো। আমি ভয়ে ভয়ে বাংলা সেন্টিমেন্ট নিয়ে ডিপ লার্নিং মডেল নিয়ে কথা বলতেই একটা ভালো 'লেবেলড' ডেটাসেটের দরকার হয়ে পড়লো। বাংলায় 'নেগেটিভ' 'পজিটিভ' ভালো 'লেবেলড' ডেটাসেটের জন্য আমাকে ভালো সাপোর্ট দিয়েছিলেন 'সোসিয়ান' নামের বাংলাদেশের একটা টেক স্টার্টআপ। এখনকার ডেটাসেটটা উনাদের দেয়া। ধন্যবাদ 'সোসিয়ান'কে। এর পাশাপাশি যারা কোডে ভুল বের করতে সাহায্য করছেন তাদের নাম আছে শেষ চ্যাপ্টারে।

এই সাইটগুলোর লিংক দেয়া হয়েছে বইয়ের পেছনে। এই বইটা লেখা হয়েছে টেন্সর-ফ্লো ২.x অফিসিয়াল ডকুমেন্টেশনের গাইডলাইনের ভিত্তিতে।